নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী দূর্গাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সম্পাদকের বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রকাশিত সংবাদের তিব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন দূর্গাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান আতিক ও সভাপতি। গত ১০ই মার্চ রাজশাহীর শুধু মাত্র কয়েকটি অনলাইন পোর্টালে রাজনৈতিক ভাবে ঘায়েল করার জন্য উদ্দেশ্য মূলক ভাবে “দুর্গাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সম্পাদকের বিরুদ্ধে চাঁদা দাবির অভিযোগ” শিরনামে প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। একটি পক্ষ গনমাধ্যম কর্মীদের কাছে মিথ্যা তথ্য দিয়ে ছাত্রলীগের সুনাম ক্ষুন্ন করার চেস্টা করছে। সাক্ষর জাল করে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে ওই চক্র। সম্পাদক পদে কমিটিতে আসতে তিন লক্ষ টাকা লেগেছে এমন মিথ্যাচার রাজনৈতিক প্রতিহিংসা মূলক।

আতিকুর রহমান আতিক বলেন, মূলত কিছু স্বাধীনতা বিরোধী জামাত-বিএনপির পৃষ্টপোষকতায় কিছু হেবি ওয়েট আওয়ামী লীগ নেতাদের বিভিন্ন অনৈতিক কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছি। এজন্য ছাত্রলীগের সুনাম ক্ষুন্ন করতে ও আমাকে রাজনৈতিক ভাবে হেনস্থা করার জন্য এসব মিথ্যাচার শুরু করে ওই চক্রটি। এ সংবাদে আমার সংশ্লিষ্ট কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি। গত উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটির থেকে বর্তামন ছাত্রলীগ অনেক সুু-সংগঠিত।

এটাকে ম্রান করার জন্য এমন মিথ্যাচার করা হচ্ছে বলে দাবি করেন উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতিও। প্রকৃত ঘটনা হচ্ছে, সম্পাদকের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগগুলো ভিত্তিহীন এবং কমিটিতে আসতে তিন লক্ষ টাকা লেগেছে এবং এছাড়া সংবাদে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করার যে অভিযোগ করেছে। এছাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের কাছে পুরা কমিটি জমা দেয়ার কথা অভিযোগে উল্লেখ করার বিষয়টি ভিত্তিহীন। কোন কমিটির কাগজ সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতির কাছে জমা হয়নি। সভাপতি অনুমোদন দিয়েছে সম্পাদক অনুমোতি দেয়নি এমন কোন ঘটনা ঘটেনি। একটি কুচক্রী মহল দীর্ঘদিন ধরে উপজেলা ছাত্রলীগকে ধ্বংস করার হিনো নীল নকশায় মেতে উঠেছে।

রাজশাহী জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর দাবি করে বলেন, দুর্গাপুর কোন ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করতে অর্থনৈতিক লেনদেন হয়নি তাদের যোগ্যতা ও সাংগঠনিক দক্ষতার বলে গঠনতন্ত্র মোতাবেক দাইত্ব দেয়া হয়েছে। দুর্গাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান আতিকের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগগুলো ভিত্তিহীন মিথ্যাচার।

কমেন্ট করুন