‘যৌনাঙ্গে আঘাত করেছে, তারপর গলা টিপে ধরেছে৷ পরিস্থিতি এমন তৈরি হয়েছিল মনে হচ্ছিল দমবন্ধ হয়ে মরে যাবো৷’ দিল্লির ঐতিহ্যাবাসী জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র আন্দোলনের ওপর নতুন করে পুলিশি নির্যাতনের অভিযোগ তুললেন ছাত্ররা৷ সোমবার জামিয়া থেকে সংসদ ভবন পর্যন্ত মিছিল ডেকেছিল ছাত্ররা৷ সেই মিছিলটি মাঝপথেই আটকে দেয় পুলিশ৷ আর সেই সময়েই ছাত্রদের ওপর নির্যাতন চালায় বলে অভিযোগ৷

একজন ছাত্রী জানিয়েছেন, ‘পুলিশ আমাদের ঠেলে সরিয়ে দিতে চাইছিল৷ পুলিশ প্রস্তুত ছিল আমাদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ার জন্য৷ হঠাৎ করে সেই পুলিশের দল ভিড়ের মধ্যে ঢুকে পড়ে৷ তারপর প্রথমে আমাদের পায়ে মারতে থাকে৷ ধীরে ধীরে পরিস্থিতি আরো ভয়ানক হয়ে যায়৷ পুলিশের মারে আমাদের এক নারী সহপাঠীর যৌনাঙ্গে আঘাত লাগে৷ তার অবস্থা খুবই সঙ্কটজনক৷ আমার সঙ্গেও এই একই ঘটনা ঘটেছে৷ আমি দু’বার জ্ঞান হারিয়েছি৷’ হাসপাতালের বেডে শুয়ে এই মর্মান্তিক অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছেন তিনি৷ মাত্র দশ দিন আগেই জামিয়ার মিছিলে গুলি চালিয়েছিল এক বন্দুকবাজ৷ সেই ঘটনার ক’দিনের মাথায় এই ঘটনা নতুন করে অশান্তি তৈরি করেছে৷ খবর পাওয়া যাচ্ছে এখনও পর্যন্ত বেশ কয়েকজন ছাত্রকে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়েছে৷ তাদের মধ্যে পাঁচজনের অবস্থা খারাপ৷ কয়েকজনের বুকে ব্যথা হচ্ছে৷ এরা সকলেই আল শিফা হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন৷

প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, প্রতিবাদীদের মিছিল না এগিয়ে নেয়ার জন্য৷ কিন্তু তারা শোনেনি৷ নিষেধ না মেনেই জামিয়ার সাত নম্বর গেট থেকে মিছিল শুরু করে ছাত্ররা৷ সন্ধ্যে ছ’টা নাগাদ শুখদেব বিহার থানা ঘেরাও করে৷ কয়েকজন ব্যারিকেড ভেঙে ঢুকে পড়ে৷ তারপরেই ঝামেলা তীব্র আকার ধারণ করে৷
সূত্র : নিউজ ১৮

কমেন্ট করুন