সান্ধ্য কোর্স বন্ধ করতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ অথবা বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) ব্যবস্থা নিতে পারে।

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আইন করে সন্ধ্যাকালীন কোর্স বন্ধ না করে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন-ইউজিসিকে তদন্তের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। বুধবার সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নউত্তর পর্বে একথা জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সব বিষয়ে আইন করে বন্ধ করার প্রয়োজন হয় না। বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক পরিস্থিতি দেখভালের দায়িত্ব ইউজিসির। সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় সান্ধ্য কোর্স নিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার বিষয়টি সরকার দেখছে।

সম্পূরক প্রশ্ন করতে গিয়ে মুজিবুল হক বলেন, জনগণের টাকায় পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় করা হয়েছে। শিক্ষকদের ব্যয় ভাতা দেওয়া হয়। কিন্তু শিক্ষকেরা সান্ধ্য কোর্সের নামে একটা শিক্ষা–বাণিজ্য আরম্ভ করেছেন। এতে শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে।

সম্পূরক প্রশ্ন করতে গিয়ে সংসদ সদস্য মুজিবুল হ্ক সান্ধ্য কোর্স বন্ধে পদক্ষেপ ও আইন করার পরামর্শ দেন। এর জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, একসময় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোয় সেশনজট বেশি ছিল। যে কারণে দুই শিফটে পড়ানো বা সান্ধ্য কোর্সে পড়ানোর ব্যবস্থা করা হয়েছিল। এখন সরকার সারা দেশে কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় করছে। শিক্ষার প্রসার ঘটছে। তবে এটা ঠিক, সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে অনেক ক্ষেত্রে শিক্ষকেরা নিজের প্রতিষ্ঠানে ক্লাস নেওয়ার চেয়ে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস নিতে বেশি আন্তরিক। তাতে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানে মাঝেমধ্যে সমস্যা হয়। এগুলো আস্তে আস্তে নিয়ন্ত্রণে আসছে।

পরে দুই মেয়াদে এই আওয়ামী লীগ সরকারের কর্মকাণ্ড নিয়ে কথা বলেন সংসদ নেতা শেখ হাসিনা। বর্তমানে ৯৬ ভাগ মানুষ বিদ্যুৎ সেবা পাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ২০২০ সালের মধ্যে শতভাগ মানুষের কাছে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিবে বর্তমান সরকার। এসময় কোম্পানী সংশোধন বিল এবং বাংলাদেশ বাতিঘর বিল সংসদে উত্থাপন করা হয়।

কমেন্ট করুন