ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই প্রচণ্ড ঠাণ্ডা আর কুয়াশায় গাছ থেকে ঝড়ে পড়ছে পানপাতা। আর, এতে মারাত্মক ক্ষতির আশঙ্কায় চরম হতাশার মধ্যে রয়েছেন পিরোজপুরের পান চাষিরা।

গত নভেম্বরে, পিরোজপুরসহ দক্ষিণাঞ্চলের উপর দিয়ে প্রবল বেগে বয়ে যায় ঘূর্ণিঝড় বুলবুল। আর, এতে লণ্ডভণ্ড হয়ে যায় জেলার ৭টি উপজেলার বেশিরভাগ পানের বরজ। কঠোর পরিশ্রম আর ধার-দেনা করে কোনমতে সেগুলো ঠিক করেন চাষিরা।

এই ধাক্কা সামলে না উঠতেই দেখা দিয়েছে নতুন সংকট। প্রচণ্ড শীত আর ঘন কুয়াশায় কোল্ড ইনজুরিতে আক্রান্ত হয়ে গাছের মধ্যভাগে পচন ধরে মারা যাচ্ছে পানগাছ। সাধারণত বৈশাখ মাসে বরজ থেকে পানপাতা সংগ্রহ করা হয়। কিন্তু, এর প্রায় ৩ মাস আগেই হলুদাভাব হয়ে ঝরে পড়ছে। ব্যয়বহুল বলে অনেক চাষিই বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এবং স্থানীয় মহাজনদের কাছ থেকে ধার নিয়ে পান চাষ করেছেন। পান বরজের এমন অবস্থায় তাই মাথায় হাত তাদের।

তবে, ঠাণ্ডা ও কুয়াশার হাত থেকে বরজ রক্ষায় চাষিদের বিভিন্নভাবে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে কৃষি বিভাগ।

পিরোজপুরের ৭টি উপজেলায় ৬৯৪ হেক্টর জমিতে পানের বরজ রয়েছে। তবে, বেশি পান চাষ হয় ভান্ডারিয়া, কাউখালী ও নেছারাবাদ উপজেলায়।

কমেন্ট করুন