1. shahalom.socio@gmail.com : admin :
  2. nagorikit@gmail.com : ভোলাহাটচিত্র : ভোলাহাটচিত্র
  3. bholahatchitro@gmail.com : ভোলাহাটচিত্র : ভোলাহাটচিত্র
আজ বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১১:২২ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন, বিনা প্রয়োজনে বাইরে বের হওয়া থেকে বিরত থাকুন।

ভোলাহাটে পিআইও’র বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীকে অভিযোগ করায় অভিযোগকারী অবরুদ্ধ

  • আপডেট করা হয়েছে সোমবার, ২৮ জুন, ২০২১
  • ৭৮৭ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ঃচাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাটে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মোঃকাউছার আলম সরকারের বিরুদ্ধে প্রকল্পে অনিয়মে প্রধানমন্ত্রীসহ বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ করায় ২৮জুন সোমবার অভিযোগকারী সুরানপুর গ্রামের মোঃ মোজাহারুল ইসলামের ছেলে মোঃ নাসিমুল হককে ডেকে ইউএনও অফিসে দেড়ঘন্টা অবরুদ্ধ রাখার অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি গণমাধ্যম কর্মীরা জেনে যাওয়ায় তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। অভিযোগে জানা গেছে, ভোলাহাট উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মোঃকাউছার আলম সরকার এবং প্রকল্প কমিটির বিরুদ্ধে প্রকল্পে হরিলুট করার অভিযোগ এনে গত  বুধবার (১৬ জুন) ডাকযোগে প্রধানমন্ত্রীসহ বিভিন্ন জায়গায় লিখিত অভিযোগ  করেছেন ভোলাহাট উপজেলার সুরানপুর গ্রামের জনৈক মোঃনাসিমুল হকসহ অন্যরা। অভিযোগে বলা হয়, সরকারি নিয়মবহির্ভূতভাবে একই স্থানে পরপর ২ অর্থবছরে দুইবার বরাদ্দ দেয়া হয়। যেমন ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে  গোহালবাড়ি ইউনিয়নের সুরানপুর জবানের গভীর নলকূপ হতে বিজিবি ক্যাম্প বাগডোগরা জাহিরুলের নলকূপ পর্যন্ত রাস্তায় কাজের বিনিময়ে খাদ্য (কাবিখা) কর্মসূচির ৯ মেট্রিক টন এবং ২০২০-২০২১ অর্থবছরে  কাজের বিনিময়ে টাকা (কাবিটা) কর্মসূচির ৪ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয় পিআইও। কিন্তু ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের ৯ মেট্রিক টন গমের যে প্রকল্প ছিল সেখানে তৎকালীন  প্রকল্প সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদকে ছাড়া গম উত্তোলন করে হরিলুট করা হয়েছে। এছাড়া কাজের বিনিময়ে টাকায় যেখানে স্থানীয় শ্রমিক দিয়ে রাস্তায় মাটি ভরাট করার কথা সেখানে ড্রেজিং মেশিন দিয়ে ৪ লাখ টাকার কাজ অল্প টাকা খরচ করে টাকা হরিলুট করা হয়েছে। এদিকে ২৮ জুন সোমবার উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মোঃ কাউছার আলম সরকার কাজের কথা বলে অভিযোগকারী মোঃ নাসিমুল হককে ইউএনও অফিসে ডাকে। প্রেক্ষিতে মোঃনাসিমুল হক বেলা ১২টার দিকে এলে তাকে ইউএনও অফিসে একটি কক্ষে তালা মেরে আটকিয়ে রাখা হয়। বিষয়টি জানতে পেরে গণমাধ্যমকর্মীরা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ কাউছার আলম সরকারের কাছে ঘটনাটি জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি অস্বীকার করেন। ভোলাহাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সমর কুমার পাল এর সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি অবরুদ্ধ রাখার বিষয়টি অস্বীকার করেন। পরবর্তীতে বেলা দেড়টার দিকে অভিযোগকারী মোঃনাসিমুল হককে ছেড়ে দেয়া হয় এবং ঘটনাটি সাংবাদিকদের জানালে তাঁকে পরবর্তীতে মাদক,চাঁদাবাজি ও অস্ত্র মামলা দিয়ে কারাগারে পাঠানোর হুমকী দেয়া হয় বলে অভিযোগকারী অভিযোগ করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন
ডিজাইনঃ নাগরিক আইটি (Nagorikit.com)